নারী নির্যাতন : সৈয়দপুরে যৌতুক দাবিতে গৃহবধূর ওপর নির্যাতন : মদনে ছাত্রী ধর্ষণকারী কলেজ শিক্ষক গ্রেফতার

নেত্রকোনার মদনে ছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগে এক কলেজ প্রভাষককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বরিশালের আগৈলঝাড়ায় গৃহবধূকে ধর্ষণের ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করেছে প্রভাবশালীরা। নীলফামারীরস সৈয়দপুরে যৌতুকের দাবিতে গৃহবধূকে নির্যাতন করেছে শ্বশুরবাড়ির লোকজন।

মদনে ছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগে প্রভাষক গ্রেফতার : নেত্রকোনার মদনে ছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগে মদন হাজী আবদুল আজিজ খান মহাবিদ্যালয়ের ইংরেজি প্রভাষক আজিজুল ইসলামকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গতকাল বিকালে কলেজ প্রাঙ্গণ থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। ধর্ষণের শিকার ওই কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্রী জানান, গত ৮ নভেম্বর জাহাঙ্গীরপুরের বাসায় প্রাইভেট পড়ার সময় একই কলেজের ইংরেজি প্রভাষক আজিজুল ইসলাম তাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। বিষয়টি মৌখিকভাবে কলেজ অধ্যক্ষকে জানালেও কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। পরে ২১ নভেম্বর ফের সে কলেজ অধ্যক্ষকে লিখিতভাবে জানান। লিখিত অভিযোগের পরপরই তড়িঘড়ি করে অভিযুক্ত কলেজ শিক্ষক একই উপজেলার কাইটাইল ইউনিয়নের শিবাশ্রম গ্রামের ফারজানা আক্তারের সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। জানাজানি হলে গতকাল দুপুরে এলাকাবাসী, শিক্ষার্থী ও স্বাবলম্বী উন্নয়ন সমিতির নারী নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটি কলেজে উপস্থিত হয়ে ধর্ষিতাকে ঘরে তুলে নেয়ার জন্য চাপ দেয়। এতে ওই প্রভাষক রাজী না হওয়ায় অভিযোগের প্রেক্ষিতে পুলিশ তাকে পরে গ্রেফতার করে।
আগৈলঝাড়ায় ধর্ষণের ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা প্রভাবশালীদের : বরিশালের আগৈলঝাড়ায় ধর্ষণের শিকার এক দিনমজুরের স্ত্রীকে মামলা করতে দিচ্ছে না প্রভাবশালীরা। জানা গেছে, উপজেলার উত্তর চাঁদত্রিশিরা গ্রামের নান্নু বখতিয়ার দীর্ঘদিন ধরে উপজেলার কদমবাড়ি গ্রামে ঘেরে মাছ চাষের ব্যবসা করে আসছে। ব্যবসার সুবাদে এক দিনমজুরের স্ত্রীর ওপর কুনজর পড়ে তার। গত বুধবার রাতে নান্নু বখতিয়ারের ঘেরের পাড় দিয়ে যাওয়ার সময় শেফালীকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে ধর্ষণ করে নান্নু বকতিয়ার। ঘটনাটি জানাজানি হলে স্থানীয় প্রভাবশালী মহল ধর্ষিতাকে ২ দিন ঘরে অবরুদ্ধ করে রাখে এবং বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা চালায়। ওই প্রভাবশালী মহলটি ধর্ষিতাকে ও তার পরিবারকে মামলা না করার জন্য বিভিন্নভাবে হুমকি দিয়ে আসছে। ওই গৃহবধূ জানান, জীবনের নিরাপত্তার জন্য মামলা করতে সাহস পাচ্ছে না।
সৈয়দপুরে যৌতুকের দাবিতে গৃহবধূ নির্যাতন : নীলফামারীর সৈয়দপুরে যৌতুকের ৫ লাখ টাকা দিতে ব্যর্থ হওয়ায় গৃহবধূ শারমিন আক্তার শাম্মীর ওপর চালানো হয়েছে অমানবিক নির্যাতন। স্বামীর নির্দেশে শাশুড়ি, ননদ ও দেবর মিলে ক্ষতবিক্ষত করেছে তাকে। সৈয়দপুর শহরের নতুন বাবুপাড়ার কুলিপাড়া মহল্লায় গতকাল এ ঘটনা ঘটে। এ ব্যাপারে একটি মামলা হয়েছে। জানা যায়, সৈয়দপুর পৌর এলাকার ইসলামবাগ চিনি মসজিদ সংলগ্ন বসবাসকারী কামাল হোসেনের মেয়ে শারমিন আক্তার শাম্মীর সঙ্গে শহরের নতুন বাবুপাড়ার কুলিপাড়া মহল্লার মৃত মোহাম্মদ আলীর ছেলে শামীম আলীর (২৬) বিয়ে হয় ২০০৮ সালের ২৭ অক্টোবর। মেয়ের সুখের কথা ভেবে প্রায় ২ লাখ টাকা মূল্যের আসবাবপত্রসহ জামাতা শামীম আলীর হাতে নগদ ২ লাখ টাকা তুলে দেয় ব্যবসার জন্য। এরমধ্যে শাম্মী ৫ মাসের গর্ভবতী হলে শামীম হঠাত্ চলে যায় সৌদি আরবে। শাম্মীর সন্তান প্রসবের পর শামীম সৌদি আরব থেকে ফিরে আসেন এবং নিজ বাড়িতে না গিয়ে অন্য এক বাড়িতে ওঠেন। সেখান থেকে ফোনে স্ত্রী শাম্মীর কাছে আরও ৫ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করেন। দাবিকৃত অর্থ না দিলে দ্বিতীয় বিয়ে করবে বলে জানিয়ে দেয়। শাম্মীর পরিবার দাবিকৃত যৌতুক দিতে ব্যর্থ হওয়ায় শামীম শহরের মিস্ত্রিপাড়ার হায়দার দর্জির মেয়ে সাদিয়া নাজ ববীকে গোপনে বিয়ে করে সৌদি আরব চলে যায়। এদিকে শাশুড়ি সাহিদা আক্তার, ননদ শামিনা আক্তার মিনা ও দেবর নাসিম মিলে অমানবিক নির্যাতন করে।

source: amar desh

0 comments

Write Down Your Responses

Thank you for your comment

Related Posts Plugin for WordPress, Blogger...
Powered by Blogger.